বিএনপি পুনর্গঠনে জোবাইদা রহমানকে দেশে আনতে বললেন মিলন

সাইদুর রহমান মিন্টু
বিজ্ঞাপন

ডেস্ক রিপোর্ট,

বিএনপির পুনর্গঠনে দলটির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের স্ত্রী ডা. জোবাইদা রহমানকে দেশে আনা প্রয়োজন বলে মনে করছেন এর আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক আ ন ম এহসানুল হক মিলন।

বুধবার (২ ডিসেম্বর) জাতীয় প্রেসক্লাবের তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া হলে চেতনায় জেট ফো‌র্সের উদ্যোগে এক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

দেশের এই অবস্থায় জোবাইদা রহমানের প্রয়োজন দাবি করে তিনি বলেন, ‘ভারতের ইন্দিরা গান্ধীর ছেলে রাজীব গান্ধী, রাজীব গান্ধীর স্ত্রী সোনিয়া গান্ধী, ছেলে রাহুল গান্ধী কংগ্রেসের নেতা হয়েছিল। হয় নাই কি? আজ বাংলাদেশের শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান ও তিন তিনবারের প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার ছেলে তারেক রহমানের নামে মিথ্যা মামলা দিয়ে নির্বাসিত করেছে। তাকে দেশে আসতে দিচ্ছে না। আমরা জানি সে দেশে আসলে তাকে মেরে ফেলা হতে পারে। তাই তার স্ত্রী জোবায়দা রহমান দেশে এসে রাজনীতির এই হাল ধরতে পারে না? নিশ্চয়ই পারেন।

বিএনপির সিনিয়র নেতাদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ‘আপনারা মনে করবেন না, আওয়ামী লীগ সরকার জিরো পয়েন্ট ক্ষমতা রেখে যাবে আর আপনারা সেখান থেকে নিবেন। ধীর গতিতে চলে জীবনেও দেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত হবে না। দেশে গণতন্ত্রের জন্য বিপ্লব দরকার আর সেই পথেই হাঁটতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘২০২১ সালে এই ফ্যাসিস্ট সরকারকে পতন ঘটিয়ে দেশে স্বাধিকার ও সার্বভৌমত্ব যদি সুরক্ষা করতে পারি, তাহলে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন করা হবে। অন্যথায়, উদযাপন করাটা ভুল হবে’।

সাবেক এই শিক্ষাপ্রতিমন্ত্রী বলেন, আওয়ামী লীগের নির্বাচনের গ্যাড়াকলে পড়ে তাদের নির্বাচনকে স্বীকৃতি দেয়ার জন্য একের পর এক নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছি এবং মামলা খাচ্ছি। আমরা বিপ্লবী দল নয়। আমরা গণতন্ত্রের দল। যে দেশে গণতন্ত্র নেই, সেই দেশে গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে বিপ্লব করতেই হবে। আজ কেন গণতন্ত্রের জন্য আমরা বিপ্লব করবো না, সেই প্রশ্নটা রয়ে গেল। আমরা কি একের পর এক নির্বাচন করব? আর মামলা খাবো। কোর্টের বারান্দা দিয়ে ঘুরবো? দেশে গণতন্ত্রের জন্য আমাদের বিপ্লব করতেই হবে। তা না হলে দেশে গণতন্ত্র ফিরে আসবে না।

সংগঠনের চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার ওবায়দুর রহমান টিপুর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন, বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য কাজী রফিক, ডা.খন্দকার মারুফ হোসেন, বিএনপি নেতা তানভীর হুদা, কৃষকদল আহ্বায়ক কমিটির সদস্য লায়ন মিয়া মোহাম্মদ আনোয়ার ও কে এম রকিবুল ইসলাম রিপন প্রমুখ।

googel
বিজ্ঞাপন