মানোন্নয়নের শিক্ষার্থীদের ক্ষতি কে পূরণ করবে -ড. এহছানুল হক মিলন

ড. এহছানুল হক মিলন
সাইদুর রহমান মিন্টু
বিজ্ঞাপন

নিজস্ব প্রতিবেদক

সাবেক শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী ও বিএনপির আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ড. এহছানুল হক মিলন বলেছেন, করোনা মহামারীর কারণে

শিক্ষা মন্ত্রণালয় এইচএসসি পরীক্ষা না নিয়ে অটো পাসের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। কিন্তু মানোন্নয়নের আবেদনকারী ৫৩ হাজার শিক্ষার্থীর ক্ষতিপূরণ কে করবে? শতভাগ পাস কখনো সমীচীন নয়। স্বাস্থ্যবিধি মেনে উপজেলার সব স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা মিলিয়ে দূরত্ব বজায় রেখে শিফট করে পরীক্ষা নেওয়া সম্ভব। গতকাল তিনি বলেন, অটোপাসে দুই পরীক্ষার ফল মিলিয়ে ফলাফল দিলে জিপিএ-৫ পাবে কয়েকগুণ বেশি শিক্ষার্থী। অন্যান্য বছরের ফল মিলালে এ বছরের ফলে দেখা যাবে ১ লাখ শিক্ষার্থী বেশি জিপিএ-৫ পেয়েছে। এই ফলে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হতে জটিলতা তৈরি হবে। প্রাথমিক বিদ্যালয়ে অনেক শিক্ষার্থী ঝড়ে পড়ছে। শিক্ষার্থীদের ক্লাসে ফিরিয়ে আনতে হবে। পাঠ্যপুস্তক কমিয়ে, একাধিক শিফট করে স্কুল খোলা সম্ভব। এতে শিক্ষার্থী সংখ্যা কম থাকবে। দূরত্ব বজায় রেখে, স্বাস্থ্যবিধি মেনে ক্লাস চালু করা সম্ভব। এতে শিক্ষকদের একটু বেশি পরিশ্রম হবে। কিন্তু শিক্ষার্থীদের সিলেবাস অসম্পূর্ণ থাকবে না। করোনা শুধু আমাদের না বৈশ্বিক সমস্যা। অন্যান্য দেশ মোকাবিলা করলে আমরাও পারব।

সাবেক এ শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, বিশ্বের অনেক দেশ স্কুল, কলেজ খুলে দুভাবে পরীক্ষা নিচ্ছে। অভিভাবকদের সম্মতিতে অনেক শিক্ষার্থী স্কুলে, কলেজে এসে পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করছে। অনেকে অনলাইনের মাধ্যমে পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করছে। এভাবে অটোপাস কোনো দেশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানই দেবে না। বিশ্বের সব বিশ্ববিদ্যালয় অনলাইনে ক্লাস কার্যক্রম চালাচ্ছে। আমাদের দেশে অনেক প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয় রীতিমতো ক্লাস, পরীক্ষা নিচ্ছে। কিন্তু পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোয় ক্লাসই হচ্ছে না। এ জন্য বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের কোনো সিদ্ধান্তও নেই।

বাংলাদেশ প্রতিদিন

googel
বিজ্ঞাপন