রাজতন্ত্রের ক্ষমতা খর্ব ও প্রধানমন্ত্রীর পদত্যাগের দাবিতে বেশ কিছুদিন ধরে থাইল্যান্ডে বিক্ষোভ চলছে। থাইল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী প্রাউত চান-ওচার পদত্যাগ চাইছেন বিরোধী দলের নেতারা। বিক্ষোভকারীদের নিয়ে আলোচনায় বসছেন ওচা। কিন্তু বিরোধী দলের দাবি মোতাবেক পদত্যাগ করতে চাননি তিনি।

থাইল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী পার্লামেন্ট অধিবেশনে বলেছেন, ‘সমস্যা থাকাকালীন ছেড়ে যাব না।’ তবে তিনি আলোচনায় আগ্রহী। এবছরের জুলাইয়ের মাঝামাঝি থেকে হাজার হাজার মানুষ থাইল্যান্ডের রাস্তায় নেমে প্রতিবাদ করছেন। থাইল্যান্ডের আইন অনুযায়ী রাজতন্ত্রের সমালোচনার শাস্তিযোগ্য অপরাধ।

তাই সংবিধানের সংশোধন চান বিরোধীরা। পাশাপাশি চান নতুন নির্বাচন, সরকারের সমালোচকদের হয়রানির অবসান এবং গ্রেপ্তার হওয়া বিক্ষোভকারীদের মুক্তি। তিন মাস ধরে চলা সরকার ও রাজশাসনবিরোধী বিক্ষোভ থামাতে ১৫ অক্টোবর হঠাৎ করেই দেশব্যাপী জরুরি অবস্থা জারি করে থাই সরকার।
এনিয়ে দেশে আর এক প্রস্ত অস্থিরতা তৈরি হয়। প্রাউত বলেছেন, তিনি সমস্যা খতিয়ে দেখতে কমিটি গঠনে রাজি। সূত্র : জি নিউজ।