নববধূকে হত্যার অভিযোগে স্বামী-শাশুড়ি গ্রেফতার নেত্রকোনায়

প্রতীকী ছবি
সাইদুর রহমান মিন্টু
বিজ্ঞাপন

নেত্রকোনার মোহনগঞ্জে সুলেমা আক্তার (২৩) নামে এক নববধূকে হত্যার অভিযোগে তার স্বামী হৃদয় ও শাশুড়ি ফরিদা বেগমকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

সোমবার দিবাগত রাতে সুলেমাকে ফাঁস লাগানো অবস্থা থেকে নামিয়ে হাসপাতালে নিয়ে যান তার স্বামী হৃদয়। পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর তাকে মৃত ঘোষণা করেন কর্তব্যরত ডাক্তার সঞ্জিব দত্ত।

সুলেমা উপজেলার কলেজ রোডের আবদুস ছাত্তারের মেয়ে। তিনি মোহনগঞ্জ সরকারি কলেজের অনার্স শেষবর্ষের ছাত্রী। তার স্বামী হৃদয় পৌরশহরের গরুহাট্টা এলাকার হারুন মিয়ার ছেলে।

 

পারিবারিকভাবে গত দুই বছর আগে তাদের বিয়ে হলেও গত ১১ সেপ্টম্বর আনুষ্ঠানিকভাবে স্ত্রীকে ঘরে তুলে নেন হৃদয়।

মেয়ের বাবা আবদুস ছাত্তার ওইদিন রাতেই বাদী হয়ে যৌতুকের কারণে নির্যাতন করে হত্যার অভিযোগ এনে স্বামী হৃদয়, শাশুড়ি ফরিদা বেগম, দেবর জয় ও তার ভগ্নিপতি জামালকে আসামি করে মামলা করেন। এ ছাড়া মামলায় কয়েকজনকে অজ্ঞাত উল্লেখ করা হয়েছে। মামলার পরপরই বামী হৃদয় ও শাশুড়ি ফরিদা বেগমকে লাশের পাশ থেকেই গ্রেফতার করে পুলিশ।

নিহতের বাবা আবদুস ছাত্তার জানান, মেয়েকে ঘরে তুলে নেওয়ার পরই যৌতুকের জন্য চাপ দিচ্ছিল হৃদয় ও তার পরিবারের লোকজন। একপর্যায়ে আমার মেয়েকে নির্যাতন করে হত্যা করার পর সেটিকে আত্মহত্যা বলে চালিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করে।

মোহনগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবদুল আহাদ খান জানান, এ ঘটনায় নিহতের স্বামী হৃদয় ও শাশুড়ি ফরিদা বেগমকে গ্রেফতার করে আদালতে পাঠানো হয়েছে।