কেন এইচএসসিতে সবাইকে উত্তীর্ণ করা হয়েছে কারন জানালেন : প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ছবি : ফোকাস বাংলা
সাইদুর রহমান মিন্টু
বিজ্ঞাপন

ডেস্ক রিপোর্ট,
নভেল করোনাভাইরাসজনিত পরিস্থিতিতে শিক্ষার্থীদের পড়াশোনা অব্যাহত রাখার স্বার্থে এইচএসসিতে সবাইকে উত্তীর্ণ করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি আরো জানান, ডিজিটাল পদ্ধতিতে শিক্ষা কার্যক্রম চালু রাখা হবে। গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে আজ বৃহস্পতিবার সকালে কিশোরগঞ্জের ইটনা-মিঠামইন-অষ্টগ্রাম অলওয়েদার সড়ক উদ্বোধনকালে এ কথা জানান প্রধানমন্ত্রী।

এ সময় প্রধানমন্ত্রী জানান, কোভিড-১৯-এর প্রভাবে স্থবির বিশ্ব অর্থনীতি। করোনার প্রকোপে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে সরকারের বিভিন্ন পরিকল্পনা। তবে শিক্ষার্থীদের পড়াশোনা চালিয়ে যেতে বিভিন্ন উদ্যোগ নিয়েছে সরকার।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘সবচেয়ে কষ্টের বিষয়টি হচ্ছে, আমাদের ছোট ছোট ছেলেমেয়েরা স্কুলে যেতে পারছে না, কলেজে যেতে পারছে না, বিশ্ববিদ্যালয়ে যেতে পারছে না। তাদের পড়াশোনা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। তারপরও আমরা চাচ্ছি, তাদের পড়াশোনাটা যাতে চলমান থাকে। সে জন্য যেহেতু আমরা এইচএসসি পরীক্ষা নিতে পারছি না, সেহেতু তাদের টেস্ট পরীক্ষা বা ক্লাসের পরীক্ষাগুলো নিয়ে রেজাল্ট দিয়ে আমরা সিদ্ধান্ত দিয়েছি, প্রমোশন দেওয়া হবে, তারা যেন পড়াশোনাটা অব্যাহত রাখতে পারে।’

এদিকে, কিশোরগঞ্জের ইটনা, মিঠামইন ও অষ্টগ্রাম—এই তিন উপজেলার আন্তঃযোগাযোগ স্থাপনে হাওরের ওপর নির্মিত হয়েছে অলওয়েদার সড়ক। ৮৭৪ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত ৩০ কিলোমিটারের দীর্ঘ সড়ক এটি।

অলওয়েদার সড়ক প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমি রাষ্ট্রপতিকে আন্তরিকভাবে ধন্যবাদ জানাই, রাষ্ট্রপতি যদি এ উদ্যোগটা না নিতেন এবং বারবার যদি আমাদের না বলতেন, তাহলে এসব অঞ্চলে যে এভাবে রাস্তা করা যায়, এটা চিন্তারই বাইরে ছিল। কিন্তু আজ তাঁর অনুপ্রেরণা এবং তাঁরই উদ্যোগে এ রাস্তা আমরা করতে পেরেছি। আমি জানি যে, এ অঞ্চলের মানুষের এখন আর আগের মতো দুঃখ থাকবে না।’

অনুষ্ঠানে কিশোরগঞ্জের সুবিধাভোগী ও সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন প্রধানমন্ত্রী।

গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে কিশোরগঞ্জের ইটনা-মিঠামইন-অষ্টগ্রাম অলওয়েদার সড়ক উদ্বোধনকালে বক্তব্য দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ছবি : ফোকাস বাংলা

googel
বিজ্ঞাপন