নির্বাচনের ফল বাতিলের দাবিতে বিক্ষোভে উত্তাল কিরগিজস্তান

সাইদুর রহমান মিন্টু
বিজ্ঞাপন

জালিয়াতির অভিযোগে রোববারের পার্লামেন্ট নির্বাচন বাতিলের দাবিতে উত্তাল কিরগিজস্তান। রাজধানী বিশকেকে অবস্থিত পার্লামেন্ট ভবনের ভিতরে ঢুকে বিক্ষোভ করছে প্রতিবাদী জনতা। ভিডিও ফুটেজে দেখা গেছে, প্রেসিডেন্ট সুরোনবাই জিবেকভের অফিসে লোকজন প্রবেশ করে জানালা দিয়ে কাগজপত্র ছুড়ে মারছে। ওই ভবনের একাংশে আগুন জ্বলতে দেখা যায়। এর আগের দিন পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ হয় উত্তেজিত জনতার। পুলিশ তাদেরকে ছত্রভঙ্গ করতে জলকামান ও কাঁদানে গ্যাস ব্যবহার করে। দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় বলেছে, সংঘর্ষে একজন মারা গেছেন। আহত হয়েছেন প্রায় ৬০০ মানুষ।
এ খবর দিয়েছে অনলাইন বিবিসি।
প্রেসিডেন্ট জিবেকভ আইন শৃংখলা রক্ষার আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি রাজনৈতিক সুনির্দিষ্ট পক্ষকে এই বিক্ষোভের জন্য দায়ী করে বলেছেন, তারা বেআইনিভাবে ক্ষমতা কেড়ে নিতে চায়। এরই মধ্যে তিনি বিরোধী দলীয় নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন। বলেছেন, প্রয়োজন হলে নির্বাচনের ফল বাতিল করা হবে। রোববারের নির্বাচনে ১৬টি দলের মধ্যে মাত্র ৪টি দল পাস করেছে। এর মধ্যে তিনটি দলের রয়েছে প্রেসিডেন্ট জিবেকভের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক। ওদিকে হাজার হাজার বিক্ষোভকারী সোমবার আলা-টু স্কয়ারে বিক্ষোভ করে। তাদেরকে ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশ স্টান গ্রেনেড নিক্ষেপ করেছে। এতে তারা ছত্রভঙ্গ হয়ে বিভিন্ন সড়কে ছড়িয়ে পড়ে। পরে আবার তারা কেন্দ্রীয় স্কয়ারে ফিরে যায়। এরপরই তারা ঝড়ের গতিতে পার্লামেন্ট ভবনে প্রবেশ করে। এই পার্লামেন্ট ভবন সেখানে হোয়াইট হাউজ হিসেবে পরিচিত। ভিডিও ফুটেজে দেখা গেছে বিরোধী দলীয় বিক্ষোভকারীরা ওই কমপ্লেক্সের ভিতরে প্রবেশ করছে। কেউ সীমানা বেড়া টপকে, আবার কেউ মূল গেট ধাক্কা দিয়ে ভিতরে প্রবেশ করছে। পরে ভবনটি থেকে ধোঁয়া উঠতে দেখা যায়। দুর্নীতির অভিযোগে স্টেট ন্যাশনাল সিকিউরিটি সার্ভিসের একটি সেন্টারে আটকে রাখা হয়েছিল সাবেক প্রেসিডেন্ট আলমাজবেক আতামবায়েভকে। বিক্ষোভকারীরা তাকে মুক্ত করে দিয়েছে। বিক্ষোভকারীরা প্রেসিডেন্টের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ গ্রুপগুলোর বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছে যে, তারা ভোট কিনেছেন টাকা দিয়ে। ভোটারদের ভয়ভীতি দেখিয়েছে। এসব অভিযোগকে বিশ্বাসযোগ্য ও মারাত্মক উদ্বেগজনক বলে জানিয়েছেন আন্তর্জাতিক পর্যবেক্ষকরা।

googel
বিজ্ঞাপন