‘প্রোফাইল পিকচার কালো, কিউট এন্ড লাভলি প্রতিবাদ’

সাইদুর রহমান মিন্টু
বিজ্ঞাপন

ডেস্ক রিপোর্ট,

অতি সম্প্রতি ফেসবুক ঘাটতে গিয়ে কিছু অস্বাভাবিকতা নজরে পড়ছে। অসংখ্য প্রোফাইল পিকচার বিশেষত নারীদের আইডির কালো হয়ে আছে৷ মনে প্রশ্ন জাগে, কেন এমন হচ্ছে ? বিশেষ করে নারীদের ক্ষেত্রেই এমনটা হয়েছে কেন? আপনার বন্ধু, আত্মীয়, সহকর্মী অনেকেই আজ নিজের ঝকঝকে প্রোফাইল পিকচার ঢেকে ফেলেছে কালো রং-এ ৷ সকলে নিজের প্রোফাইল কালো করে দিন, এমন বক্তব্যও ছড়িয়ে পড়ছে৷

একটু খেয়াল করলে বুঝবেন এটা এক ধরনের প্রতিবাদ৷ দেশে একের পর এক ঘটে চলা নারী নির্যাতনের প্রতিবাদেই এমন প্রচার। সিলেটে লোমহর্ষক গণধর্ষনের রেশ কাটতে না কাটতেই নোয়াখালীতে বর্বর নির্যাতনের ভিডিও ভাইরালের পর ক্ষোভে ফুসছে বাংলাদেশ। রাজপথের মতো সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমেও প্রতিবাদে মুখর লাখো মানুষ। শ্লোগান ওঠেছে সবখানে। ধর্ষকদের বিচার চাই। সমস্যার গোঁড়ায় হাত দেয়া চাই।

প্রোফাইল কালো করার মধ্য দিয়ে সেই প্রতিবাদ আর শ্লোগানে সামিল হচ্ছেন হাজারো নারী। নিজেদের সুরক্ষার কথা ভেবেই৷ ঘরে বসে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এমন প্রতিবাদে সামিলের সংখ্যা নেহায়েত কম নয় ৷ ডিজিটাল মাধ্যম হওয়ায় তা ছড়িয়েছে দেশে-বিদেশের নানা প্রান্তে।

অস্ট্রেলিয়ার নিউক্যাসল বিশ্ববিদ্যালয়ে পিএইচডি ক্যান্ডিডেট সাবরিনা সৈয়দ সেঁজুতি
তার প্রোফাইল পিকচার কালো করে ইংরেজিতে লিখেছেন- বাংলাদেশে নারী নির্যাতনের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোল।

সাংবাদিক মারিয়া সালাম এই ভিন্নধর্মী প্রতিবাদের পক্ষ নিয়ে ফেসবুকে লিখেছেন, সারাদেশে নারীদের প্রতি যে সহিংসতা, তার প্রতিবাদেই আজ নারীরা একটা দিন নিজেদের প্রোফাইল ছবি কালো রাখবেন।
এতে তেমন কোন লাভ হবে না এটা আপাতদৃষ্টিতে মনে হলেও সামান্য হলেও লাভ আছে, ক্ষতি নাই। আজ ফেসবুকে সব মেয়েরা কই, এই প্রশ্নের উত্তর কোন ছেলেই খুঁজবে না বরং অনেকেই মুখ টিপে হাসবে, অফিসে টিপ্পনী কাটবে। আবার অনেকেই বলবে, এইসবে কাজ হবে না, আপনারা ভালো হয়ে যান, সব ঠিক হয়ে যাবে, আপনি ভালোতো সব ভালো। এগুলো শুনে গায়ে জ্বালা হবে, চোখে পানি আসবে আবার ক্ষেপে গিয়ে আমরা তর্ক করবো। এই এতকিছুর পরেও, আমরা যে তর্ক করব, প্রোপিক চেঞ্জ করব না, সারাদিন সেটা কালো রাখব, সেখানেই আছে আমাদের টিকে থাকার মন্ত্র। আমাদের অনেক বন্ধু, ভাই এসে আমাদের এই কালো ছবিতেও লাইক দিবে, কমেন্ট লিখবে, আপনারা এগিয়ে যান, আমরা আছি সাথে। এখানেই আমরা নতুন করে চলার অনুপ্রেরণা পাব। সব প্রতিবাদেরই একটা শক্তি আছে। কোন প্রতিবাদকেই খাটো করে দেখার সুযোগ নাই।

তবে তিনি এটাও লিখেছেন, দিনে দিনে আমরা যেদিকে যাচ্ছি, এইসব নিরীহ প্রতিবাদের পাশাপাশি কার্যকর পদক্ষেপ না নিলে নারীর প্রতি সহিংসতা টেবিলে আলোচনার বিষয় হয়েই রয়ে যাবে।

এরকম প্রতিবাদের সাথে ভিন্নমত পোষণ করে অস্ট্রেলিয়া প্রবাসী ফারিয়া লোবা লিখেছেন, অপরাধ কি আমার? আমিতো উজ্জ্বলতর হতে চাই! আমাকে কেন অদৃশ্য হতে হবে! আমাকে কেন অন্ধকারে হারিয়ে যেতে হবে?

রাজধানীর একটি ইংরেজি স্কুলের শিক্ষক মিঠুন সুলতানা লিখেছেন, প্রোফাইল পিকচার কালো!
কিউট এন্ড লাভলি প্রতিবাদ! এরপরের প্রোফাইল পিক হবে আবারও সুইট এন্ড ফেয়ার এন্ড লাভলি!!

এভাবেই এরকম প্রতিবাদের পাল্টা মতও ঘুরছে ফেসবুকে৷ তাদের প্রশ্ন- শুধু প্রোফাইল পিকচার কালো করেই কি দেশের মেয়েদের সুরক্ষা দেওয়া যাবে? নাকি এর জন্য গড়তে হবে আরো বড় কোন আন্দোলন?

googel
বিজ্ঞাপন