হাসপাতালের বেড থেকে তুলে নিয়ে কিশোরীকে ধর্ষণ

প্রতীকী ছবি

চিকিৎসা নিতে গিয়ে ধর্ষণের শিকার হয়েছে এক কিশোরী। ঘটনাটি ঘটেছে মানিকগঞ্জের সাটুরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে। ঘটনা তদন্তে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ সাত সদস্যবিশিষ্ট একটি কমিটি গঠন করেছে। তবে অভিযোগ উঠেছে, ঘটনাটি ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা হলেও স্থানীয় লোকজনের চাপে প্রায় সাত দিন পর এই কমিটি গঠন করা হয়েছে।

পরিবার সূত্রে জানা গেছে, জ্বর ও শরীর ব্যথা নিয়ে ওই কিশোরী গত ৩ সেপ্টেম্বর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হয়। ১১ সেপ্টেম্বর রাতে দায়িত্বরত নার্স তাকে জানিয়ে দেন যে পরের দিন তাকে ছাড়পত্র দেওয়া হবে। রাত ১১টার দিকে মেয়েকে বিছানায় না দেখে তার মা খোঁজাখুঁজি করতে থাকেন। একপর্যায়ে হাসপাতালের বারান্দায় তিনি মেয়েকে রক্তাক্ত অবস্থায় দেখতে পান। কর্তব্যরত নার্স মেয়েটির অবস্থা গুরুতর দেখে চিকিৎসককে জানান। চিকিৎসক এসে মেয়েটিকে ওই রাতেই মানিকগঞ্জ জেলা হাসপাতালে পাঠিয়ে দেন। সেখানে তিন দিন থাকার পর মেয়েটিকে ছাড়পত্র দেওয়া হয়।

মেয়েটির উদ্ধৃতি দিয়ে পরিবার জানায়, হাসপাতালের তিনতলা থেকে এক যুবক জোর করে তাকে নিচতলায় নিয়ে যায়। সেখানে ধর্ষণ করে রক্তাক্ত অবস্থায় মেয়েটিকে আবার তিনতলার বারান্দায় এনে ফেলে রেখে যায়। হাসপাতালের সিসি ক্যামেরা ফুটেজ থেকে ধর্ষকের পরিচয় জানা সম্ভব।

সাটুরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. মামুনুর রশীদ জানান, ঘটনা তদন্তে শিশু বিশেষজ্ঞ ডা. সাদিককে প্রধান করে গত শনিবার সাত

সদস্যের একটি কমিটি করে দুই কার্যদিবসে রিপোর্ট দিতে বলা হয়েছে। হাসপাতালের ভেতরে এমন ঘটনায় যে-ই জড়িত থাকুক, প্রমাণ সাপেক্ষে তার বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

googel [ecwid widgets="productbrowser categories" default_category_id="0" default_product_id="0" minicart_layout="MiniAttachToProductBrowser"]