কুমিল্লায় গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা উপসর্গ নিয়ে ১০ জনের মৃত্যু

করোনাভাইরাসের  উপসর্গ নিয়ে কুমিল্লায় একদিনে আরো ১০ জনের মৃত্যু হয়েছে। রবিবার সকাল থেকে সোমবার (১৭ আগস্ট) সকাল পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টা সময়ে কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজ (কুমেক) হাসপাতালের কভিড-১৯ ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাদের প্রাণহানি ঘটে। মারা যাওয়া ব্যক্তিদের মধ্যে তিনজন নারী ও সাতজন পুরুষ।

কুমেক হাসপাতালের পরিচালক ডাক্তার মুজিবুর রহমান তাদের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। উপসর্গ নিয়ে কুমেকের কভিড-১৯ ইউনিটে একদিনে এটিই সর্বোচ্চ মৃত্যুর রেকর্ড বলে জানান তিনি। মারা যাওয়া ১০ জনের মধ্যে ছয়জন  হাসপাতালের নিবিড় পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রে (আইসিইউ), দুই আইসোলেশন ওয়ার্ডে এবং দুজন কভিড ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন ছিলেন।

এনিয়ে হাসপাতালটিতে করোনার সংক্রমণ ও উপসর্গ নিয়ে ৭৩ দিনে ৩৬১ জনের মৃত্যু হয়েছে। করোনার সংক্রমণ ও উপসর্গ থাকা রোগীদের চিকিৎসার জন্য গত ৩ জুন কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজ হপাসাতালে ডেডিকেটেড করোনা ইউনিট চালু করা হয়।

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা যাওয়া ব্যক্তিরা হলেন কুমিল্লার ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার শামসুল আলম (৬০), চান্দিনা উপজেলার নুরুল ইসলাম (৭৫), একই উপজেলার আবদুল মালেক (৬৫), বরুড়া উপজেলার ফাতেমা বেগম (৬০), লাকসাম উপজেলার নুরুল আমিন (৬০), কুমিল্লা নগরের রেইসকোর্স এলাকার রিয়া (৩০), দেবীদ্বার উপজেলার নাসরিন আক্তার (৪০), মনোহরগঞ্জের মাহমুদুর রহমান (৬০), চৌদ্দগ্রামের সহিদুল (৫০) এবং ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলার শামসুজ্জামান (৫৫)।