করোনায় পিছিয়ে গেল নিউজিল্যান্ডের নির্বাচন

DSLR Cameras/ https://amzn.to/2P4hlHWCanon EOS Rebel T7 DSLR Camera with 18-55mm Lens | Built-in Wi-Fi|24.1 MP CMOS Sensor | |DIGIC 4+ Image Processor and Full HD Videos$359.99এই ক্যামেরা টি কিন্তে এখানে কিল্ক করুন

✍ আন্তর্জাতিক ডেস্ক
জেসিন্ডা আরডার্ন বলেন, ‘নির্বাচন পেছনোর কোনো ইচ্ছাই আমার ছিল না। কিন্তু করোনা পরিস্থিতির কারণে পেছানোর সিদ্ধান্ত নিতে হয়েছে। নতুন যে তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে এরপর আর নির্বাচন পেছানোর কোনো ইচ্ছা নেই আমাদের।’


নিউজিল্যান্ডের আইন অনুযায়ী প্রধানমন্ত্রী প্রয়োজনে দুই মাসের জন্য নির্বাচন পিছিয়ে দিতে পারেন। তাছাড়া বিরোধী দলও নির্বাচন পিছিয়ে দেওয়ার জন্য সরকারকে অনুরোধ করছিল।

দেশটিতে নতুন করে করোনাভাইরাস সংক্রমণ ধরা পড়ার পর পার্লামেন্টে বিরোধী দলের নেতা জুডিথ কলিন্স বলেছিলেন, ‘বর্তমান পরিস্থিতিতে একটি সুষ্ঠু এবং অবাধ নির্বাচন করা সম্ভব নয়।’

নিউজিল্যান্ডে টানা ১০২ দিন স্থানীয় কোনো সংক্রমণ ছিল না। কিন্তু দুদিন আগে সবচেয়ে বড় শহর অকল্যান্ডে করোনার নতুন একটি ক্লাস্টার পাওয়া যায়। সঙ্গে সঙ্গে লকডাউন ঘোষণা করা হয় সেখানে। রবিবার পর্যন্ত অকল্যান্ডের আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৩০ জন। আর পুরো নিউজিল্যান্ডে বর্তমানে করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ৬৯ জন।

দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় মনে করছে, বিদেশ থেকে যারা দেশে ফিরেছেন তাদের মাধ্যমেই ভাইরাসটি ছড়াতে শুরু করেছে। অবশ্য ভ্রমণকারীদের মাধ্যমে ছড়ায়নি এবার। নতুন করে যারা আক্রান্ত হচ্ছে তারা হয় পরিবারের সদস্যদের দ্বারা অথবা সহকর্মীদের দ্বারা সংক্রমিত হচ্ছে।