জামিন পেলেন সিফাত, মামলার তদন্তে র‌্যাব

✍ ডেস্ক রিপোর্ট

কক্সবাজারের টেকনাফে পুলিশের গুলিতে নিহত অবসরপ্রাপ্ত সেনা কর্মকর্তা মেজর সিনহা মো. রাশেদ খানের সহযোগী সাহেদুল ইসলাম সিফাতের জামিন মঞ্জুর করেছে আদালত। একই সঙ্গে বিবাদী পক্ষের আবেদনের প্রেক্ষিতে তার মামলার তদন্তভার র‌্যাবকে দেওয়া হয়েছে।

সোমবার বেলা ১১টার দিকে কক্সবাজার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক তামান্না ফারাহ এসব আদেশ দেন।

সিফাতের আইনজীবী অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ মোস্তফা ও অ্যাডভোকেট মাহবুবুল আলম টিপু যৌথ প্রেস ব্রিফিংয়ে জানান, সিফাতের বিরুদ্ধে পুলিশের দায়ের করা ২টি মামলায় জামিন আবেদন করা হয়। পাঁচ হাজার টাকা বন্ডে সিফাতের জামিন মঞ্জুর করেন বিচারক। একই সঙ্গে মামলার তদন্তভার র‌্যাবকে দেওয়া হয়েছে।

এর আগে ওই ঘটনায় রবিবার রামু থানায় দায়ের করা অপর একটি মামলায় স্টামফোর্ড ইউনিভার্সিটি ছাত্রী শিপ্রা দেবনাথ জামিনের পর কারাগার থেকে মুক্তি পেয়েছেন।

গত ৩১ জুলাই রাতে টেকনাফ বাহারছড়া চেকপোস্টে তল্লাশির সময় পুলিশের গুলিতে নিহত হন অবসরপ্রাপ্ত সেনা কর্মকর্তা মেজর সিনহা মো. রাশেদ খান।

ওই সময় ডকুমেন্টারি তৈরির কাজে রাশেদের সঙ্গে থাকা স্টামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিল্ম অ্যান্ড মিডিয়া বিভাগের দুই শিক্ষার্থী শিপ্রা ও সিফাতকে গ্রেপ্তার করা হয়।

এরপর ৫ আগস্ট নিহত রাশেদের বোন শারমিন শাহরিয়া ফেরদৌস বাদী হয়ে কক্সবাজার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে পরিদর্শক লিয়াকত, ওসি প্রদীপ কুমার দাশসহ নয়জনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা দায়ের করেন।

পরদিন বরখাস্ত ওসি প্রদীপসহ সাত আসামি কক্সবাজার সিনিয়র জুডিসিয়াল আদালতে আত্মসমর্পণ করেন। মামলার তদন্তে থাকা র‌্যাবের আবেদনে তাদের বিভিন্ন মেয়াদে রিমান্ড মঞ্জুর করে আদালত। একই সঙ্গে পলাতক দুই আসামির বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়।