১০ দশ মাস ধরে বেতন পান না কোহলি-রোহিতরা!

খেলাধুলা ডেস্ক
লকডাউনে আর্থিক ক্ষতির শিকার কেবল আমজনতাই হয়নি। বিশ্বের ধনীতম ক্রিকেট বোর্ড বিসিসিআই-তেও আটকে আছে তারকা ক্রিকেটারদের বেতন।

জানা গেছে, গত বছরের অক্টোবর থেকে বেতনহীন অবস্থায় দিন কাটাচ্ছেন কোহলি-রোহিত শর্মাসহ বোর্ডের ২৭ জন চুক্তিভিত্তিক ক্রিকেটার। চার মাস অন্তর ক্রিকেটাররা প্রাপ্য বেতন পেয়ে থাকেন। সেই হিসেবে ডিসেম্বর থেকে জাতীয় ক্রিকেট দল যে দুটো টেস্ট, আটটা টি২০ এবং নয়টা ওডিআই ম্যাচ খেলেছে, সেই টাকা এখনও বকেয়া রয়ে গেছে।

বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে চুক্তিবদ্ধ ক্রিকেটারদের বেতন দিতে বার্ষিক বিসিসিআই’র খরচ হয় ৯৯ কোটি রুপি। বোর্ডের কমপক্ষে আটজন ক্রিকেটার জানান, গত দশ মাস বেতন পাননি তারা। এই বিষয়ে অরুণ ধূমলকে ফোন করা হলে তার জবাব মেলেনি।

বিসিসিআই’র পক্ষ থেকে শেষবার ব্যালান্স শিট প্রকাশ করা হয়েছিল ২০১৮ সালের মার্চে। সেখানে বলা হয়েছে বোর্ডের নগদ ও ব্যাংক ব্যালেন্সের পরিমাণ ৫ হাজার ৫২৬ কোটি রুপি। ফিক্সড ডিপোজিটের পরিমাণ ২ হাজার ৯৯২ কোটি রুপি। ২০১৮ সালের এপ্রিলে বোর্ডের সঙ্গে স্টার টিভির সম্প্রচার স্বত্ব অনুযায়ী চুক্তির পরিমাণ ৬ হাজার ১৩৮ কোটি রুপি।

ঘটনাচক্রে, গত ডিসেম্বর থেকে বোর্ডের কোনও ফিনান্সিয়াল অফিসার নেই। গত মাস থেকে ফাঁকা রয়েছে জেনারেল ম্যানেজার এবং সিইও পোস্টও। বোর্ডের সংবিধান অনুযায়ী, সভাপতি সৌরভ গাঙ্গুলি এবং সচিব জয় শাহের মেয়াদ ফুরিয়েছে। সব মিলিয়ে বেশ টালমাটাল অবস্থায় বিসিসিআই।

ভারতীয় দলের এক তারকা জানালেন, বোর্ডের পক্ষ থেকে চুক্তিভুক্ত ক্রিকেটারদের জানানো হয়েছে, তিন মাস অন্তর বেতনের জন্য ইনভয়েস সংগ্রহ করতে। কিন্তু এবার কিছুই জানানো হয়নি। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সেই ক্রিকেটার জানালেন, “বেতনের বিষয়ে কী হবে, তা নিয়ে কোনও স্পষ্ট ধারণা নেই আমাদের। শেষবার ফেব্রুয়ারিতে নিউজিল্যান্ড সফরের জন্য বেতনের ইনভয়েস সংগ্রহ করতে বলা হয়। সেই টাকাও জমা পড়েনি।”

শুধু জাতীয় দলের তারকা ক্রিকেটাররাই নন। বয়সভিত্তিক ও প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটারদেরও বেতন নিয়ে অনিশ্চয়তা রয়েছে। যদিও বিসিসিআই’র ওয়েবসাইটে দাবি করা হয়েছে প্রত্যেক রাজ্য সংস্থাকে বেতন বাবদ ১০ কোটি করে টাকা দিয়ে দেওয়া হয়েছে। সূত্র: ইন্ডিয়া এক্সপ্রেস