একদিনে র‌্যাবের কাছে সাহেদের বিরুদ্ধে ৯২ অভিযোগ

DSLR Cameras/ https://amzn.to/2P4hlHWCanon EOS Rebel T7 DSLR Camera with 18-55mm Lens | Built-in Wi-Fi|24.1 MP CMOS Sensor | |DIGIC 4+ Image Processor and Full HD Videos$359.99এই ক্যামেরা টি কিন্তে এখানে কিল্ক করুন

✍ ডেস্ক রিপোর্ট
করোনা পরীক্ষার ভুয়া রিপোর্ট দেওয়ার অভিযোগে গ্রেফতার রিজেন্ট গ্রুপের চেয়ারম্যান মো. সাহেদের বিরুদ্ধে অভিযোগের শেষ নেই। তার ব্যাপারে বহু প্রতারণার তথ্য পাওয়া যাচ্ছে। জনসাধারণের কাছ থেকে তথ্য আহ্বানের প্রথম দিনে র‌্যাবের কাছে ৯২টি অভিযোগ জমা পড়েছে। শনিবার পর্যন্ত সবশেষ তথ্য অনুযায়ী র‌্যাবের নির্ধারিত সেলে এসব অভিযোগ এসেছে।

র‌্যাব সূত্র জানায়, ভুক্তভোগীর কাছ থেকে সাহেদের প্রতারণার বিষয়ে তথ্য আহ্বানের পর থেকে বিপুল সংখ্যক মানুষ নানাভাবে র‌্যাবকে তথ্য জানিয়ে সহায়তা চাচ্ছেন। একদিনেই সাহেদের বিরুদ্ধে ৯২টি প্রতারণার অভিযোগ জমা পড়েছে।

ফাইল ছবি

এর মধ্যে ফোন কলের মাধ্যমে ভুক্তভোগীরা র‌্যাবকে ৭২টি অভিযোগ দিয়েছেন। আর ২০টি অভিযোগ এসেছে মেইলে, যারা বিভিন্ন প্রতারণার তথ্য প্রমাণসহ র‌্যাবকে মেইল করেছেন।
র‌্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক লে. কর্নেল আশিক বিল্লাহ গণমাধ্যমকে বলেন, সাহেদের দ্বারা প্রতারিত হয়ে বিপুল সংখ্যক ভুক্তভোগী র‌্যাবকে তথ্য জানাচ্ছেন। অভিযোগগুলো যাচাই-বাছাই সাপেক্ষে ভুক্তভোগীদের আইনি সহায়তার জন্য প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দেওয়া হচ্ছে।

রিজেন্টের প্রতারণার দায়ে গ্রেফতার প্রতারক সাহেদের ব্যাপারে শুক্রবার (১৭ জুলাই) বিকেলে ভুক্তভোগীদের কাছ থেকে যেকোন তথ্য, অভিযোগ বা আইনি সহায়তা পেতে যোগাযোগের আহ্বান জানায় র‌্যাব।

র‌্যাব জানায়, রিজেন্ট গ্রুপের চেয়ারম্যান সাহেদ করিমের বিরুদ্ধে প্রতারণার অনেক মামলা রয়েছে। তিনি বিভিন্ন পরিচয় ব্যবহার করে মানুষের সঙ্গে প্রতারণা করেছেন। অনেকেই অভিযোগ করেননি। তবে সাহেদ গ্রেফতার হওয়ার পর প্রতারণার শিকার অনেক ভুক্তভোগী র‌্যাবের সঙ্গে যোগযোগ করছেন।

সাহেদের প্রতারণা, কু-কর্ম এবং বিভিন্ন অপরাধের বিষয়ে চাইলে যে কেউ আমাদের তথ্য দিয়ে সহায়তা করতে পারেন। কোনো ভুক্তভোগী অভিযোগ দিতে চাইলে র‌্যাবের পক্ষ থেকে তাদের আইনি সহায়তা দেওয়া হবে।

সাহেদের প্রতারণার শিকার ভুক্তভোগীদের সহযোগিতা করা ও আইনি সহায়তার জন্য ০১৭৭৭-৭২০২১১ হটলাইন নম্বরে যোগাযোগ করতে অনুরোধ করা হয়েছে। পাশাপাশি চাইলে যে কেউ ই-মেইলে যোগাযোগ করতে পারেন ([email protected])। প্রয়োজনে প্রতারিত বা ভুক্তভোগীর নাম পরিচয় গোপন রাখবে র‍্যাব তদন্ত উইং।