কোরবানি দিতে শাকিবের কাছে টাকা চাইলেন অপু বিশ্বাস

DSLR Cameras/ https://amzn.to/2P4hlHWCanon EOS Rebel T7 DSLR Camera with 18-55mm Lens | Built-in Wi-Fi|24.1 MP CMOS Sensor | |DIGIC 4+ Image Processor and Full HD Videos$359.99এই ক্যামেরা টি কিন্তে এখানে কিল্ক করুন

✍ বিনোদন ডেস্ক

২০০৮ সালে ইসলামী শরিয়ত মেনে মুসলমান ধর্মাবলম্বী চিত্রনায়ক শাকিব খানকে বিয়ে করেছিলেন হিন্দু ধর্মাবলম্বী অপু বিশ্বাস। বিয়ের খবর প্রকাশ্যে আসার পর নিজেকে তিনি মুসলমান হিসেবে দাবিও করেন। কিন্তু শাকিবের সঙ্গে ডিভোর্সের পর আবার পুরনো ধর্মে ফিরে যান নায়িকা। সেই অপুই কিনা আসন্ন ঈদুল আযহায় পশু কোরবানি করার জন্য সাবেক স্বামী শাকিব খানের কাছে টাকা চেয়েছেন!

ঢালিউড সুপারস্টার শাকিবের এক ঘনিষ্ঠ সূত্র এমন দাবি তুলেছেন। এই খবর প্রকাশ হতেই শোরগোল পড়ে গেছে মিডিয়া পাড়ায়। অনেকেই প্রশ্ন তুলছেন, ডিভোর্সের পর নিজ ধর্মে ফিরে গিয়ে অপু এখন কীভাবে ঈদুল আযহায় পশু কোরবানি করতে চান এবং তার জন্য সাবেক স্বামীর কাছে টাকা চাইতে পারেন। যেখানে তিনি নিজেই বলেছিলেন, শাকিব তাকে কাগজে কলমে মুসলিম করেননি। তিনি অপু বিশ্বাস, হিন্দু ধর্মই নাকি তার একমাত্র পরিচয়।

ধর্ম নিয়ে অপুর এমন দ্বৈত আচরণে হতবাক তার ভক্তরাও। কিন্তু এ ব্যাপারে শাকিব খান কী বলছেন? সাবেক স্ত্রীর টাকা চাওয়ার সত্যতা জানিয়ে ঢালিউড কিং বলেন, ‘এসব নিয়ে কোনো কথা বলতে চাই না। এগুলো একেবারেই ব্যক্তিগত ব্যাপার। আমি শুধু বলতে চাই, করোনার কারণে দীর্ঘদিন ঘরে থাকতে থাকতে আমি এখন খুব বিরক্ত। তাই ছেলে জয়কে নিয়ে কোরবানির ঈদের আনন্দ উপভোগ করতে চেই। আশা করি, ঈদের সময় জয় আমার কাছেই থাকবে।’

প্রসঙ্গত, রেকর্ড ৭০টির বেশি ছবিতে জুটি বেঁধে অভিনয় করেছেন শাকিব খান ও অপু বিশ্বাস। একসঙ্গে দীর্ঘদিন কাজ করতে করতে বাস্তবেও মন দেয়া-নেয়া সেরে ফেলেন দুই তারকা। ২০০৮ সালের ১৮ এপ্রিল তারা বিয়ে করেন। দীর্ঘদিন এ খবর লুকিয়ে রাখেন। দাম্পত্য জীবনের আট বছরের মাথায় ২০১৬ সালের ২৭ সেপ্টেম্বর কলকাতার একটি হাসপাতালে ছেলে জয়ের জন্ম দেন অপু বিশ্বাস।

তারপর আর নিজেকে সামলে রাখতে পারেননি এই নায়িকা। ২০১৭ সালের মাঝামাঝি সময়ে দেশে ফিরে ছোট্ট জয়কে কোলে নিয়ে একটি বেসরকারি টিভির লাইভ অনুষ্ঠানে হাজির হন অপু। সেখানেই কেঁদে কেঁদে ফাঁস করেন শাকিব খানের সঙ্গে তার বিয়েসহ লুকিয়ে রাখা অনেক খবর। এতে ক্ষীপ্ত হয়ে যান শাকিব। একাধিক অভিযোগ এনে ওই বছরেরই ২২ নভেম্বর তিনি অপুকে তালাকের নোটিশ পাঠান।

এ ঘটনায় ঢালিউড পাড়ায় তো বটেই, সারাদেশে তোলপাড় শুরু হয়। পরে দুই তারকার সংসার টেকাতে উদ্যোগী হয় খোদ ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি)। তিন দফায় সালিশি বৈঠক ডাকে তারা। কিন্তু প্রতি বৈঠকে অপু বিশ্বাস উপস্থিত থাকলেও দেখা মেলেনি শাকিব খান বা তার পরিবারের কারও। উপায়ন্তর না দেখে ডিভোর্স মেনে নেন নায়িকা। ২০১৮ সালের ২২ ফেব্রুয়ারি অপুর সঙ্গে শাকিবের ডিভোর্স কার্যকর হয়।