স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে চাকরি

DSLR Cameras/ https://amzn.to/2P4hlHWCanon EOS Rebel T7 DSLR Camera with 18-55mm Lens | Built-in Wi-Fi|24.1 MP CMOS Sensor | |DIGIC 4+ Image Processor and Full HD Videos$359.99এই ক্যামেরা টি কিন্তে এখানে কিল্ক করুন

মেডিক্যাল টেকনিশিয়ান পদে ৯ ক্যাটাগরিতে ১৬৫০ জন এবং মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট পদে ৫ ক্যাটাগরিতে ৮৮৯ জন অর্থাৎ মোট ২৫৩৯ জন নিয়োগ দেবে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। গত ২৯ জুন এসংক্রান্ত দুটি পৃথক নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত হয়েছে। এ ছাড়া কার্ডিওগ্রাফার পদে ১৫০ জন নিয়োগের আরেকটি বিজ্ঞপ্তি একই দিন প্রকাশিত হয়। সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে নিয়োগ পরীক্ষার প্রস্তুতিসহ বিস্তারিত জানাচ্ছেন পাঠান সোহাগ

কোন পদে কতজন : মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট (ল্যাবরেটরি) ৪৯৭ জন, মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট (রেডিওগ্রাফি) ১১৫ জন, মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট (ডেন্টাল) ১১১ জন, মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট (ফিজিওথেরাপি) ১১৩ জন, মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট (রেডিওথেরাপি) ৫৩ জন;

মেডিক্যাল টেকনিশিয়ান (ইসিজি) ৪৬০ জন, মেডিক্যাল টেকনিশিয়ান (অ্যানেসথেসিয়া) ৩০২ জন, মেডিক্যাল টেকনিশিয়ান (ডায়ালিসিস) ৩০২ জন, মেডিক্যাল টেকনিশিয়ান (বায়োমেডিক্যঅল) ২১১ জন, মেডিক্যাল টেকনিশিয়ান (ইটিটি) ১২২ জন, মেডিক্যাল টেকনিশিয়ান (পারফিউশনিস্ট) ১ জন, মেডিক্যাল টেকনিশিয়ান (ইকো) ২৪৮ জন, মেডিক্যাল টেকনিশিয়ান (সিমুলেটর) ২ জন, মেডিক্যাল টেকনিশিয়ান (অর্থপেক্সি) ২ জন এবং কার্ডিওগ্রাফার ১৫০ জন।

শিক্ষাগত যোগ্যতা ও অভিজ্ঞতা : মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট (ল্যাবরেটরি, রেডিওগ্রাফি, ডেন্টাল , ফিজিওথেরাপি, রেডিওথেরাপি) পদের জন্য সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ডিপ্লোমা ডিগ্রি থাকতে হবে। এ ছাড়া কার্ডিওগ্রাফার, মেডিক্যাল টেকনিশিয়ান (ইসিজি, অ্যানেসথেসিয়া, ডায়ালিসিস, বায়োমেডিক্যাল, ইটিটি, পারফিউশনিস্ট, ইকো, সিমুলেটর, অর্থোপেক্সি) পদে জন্য উচ্চ মাধ্যমিক বা সমমান সংশ্লিষ্ট বিষয়ে তিন বছরের বাস্তব অভিজ্ঞতা থাকতে হবে।

পরীক্ষা এমসিকিউ কিংবা লিখিত পরীক্ষা পদ্ধতিতে হতে পারে। মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট ও মেডিক্যাল টেকনিশিয়ানদের মধ্যে বাংলা, ইংরেজি, গণিত, সাধারণ জ্ঞান ও তথ্য-প্রযুক্তি থেকেই সাধারণত প্রশ্ন আসে

আবেদনের সময়সীমা: আগ্রহী প্রার্থীরা ওয়েবসাইটের অনলাইনে আবেদন প্রেরণ করতে পারবেন। ওয়েবসাইটে প্রকাশিত নির্দেশিকা মোতাবেক ফরম পূরণ করতে হবে। আবেদনকারীর বয়স ১৮ থেকে ৩০ বছরের (১ জুলাই ২০২০ তারিখে) মধ্যে হতে হবে। মুক্তিযোদ্ধার পুত্র-কন্যা/প্রতিবন্ধীদের ক্ষেত্রে বয়সসীমা সর্বোচ্চ ৩২ বছর। আবেদন করা যাবে ২০ জুলাই ২০২০ পর্যন্ত। অনলাইনে আবেদন করার ৭১ ঘণ্টার মধ্যে টেলিটক প্রিপেইড মোবাইল নম্বরের মাধ্যমে চার্জসহ ১১২ টাকা (আবেদন ফি) জমা দিতে হবে।

পরীক্ষা পদ্ধতি : বাংলাদেশ মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সাবেক মহাসচিব ও জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের সিনিয়র মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট মো. সেলিম মোল্লা বলেন, ‘মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট ও মেডিক্যাল টেকনিশিয়ানদের প্রশ্নপত্র ভিন্ন হবে। পরীক্ষা কোনো কোনো সময় ১০০ নম্বর আবার কোনো কোনো সময় ৮০ নম্বরের হয়। এটা সম্পূর্ণ নির্ভর করে নিয়োগ বোর্ডের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী। পরীক্ষা এমসিকিউ কিংবা লিখিত পরীক্ষা পদ্ধতিতে হতে পারে। মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট ও মেডিক্যাল টেকনিশিয়ানদের মধ্যে বাংলা, ইংরেজি, গণিত, সাধারণ জ্ঞান ও তথ্য-প্রযুক্তি থেকেই সাধারণত প্রশ্ন আসে। কেবল মেডিক্যাল টেকনোলজিস্টদের ক্ষেত্রে মেডিক্যাল টেকনোলজি রিলেটেড কিছু প্রশ্ন থাকে।’

তিনি আরো জানান, মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট ও মেডিক্যাল টেকনিশিয়ানদের গ্রেড ও বেতন স্কেল ভিন্ন। তাই একই রকম প্রশ্নে উভয় পদের পরীক্ষা হবে না।

♦ বাংলা : মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট ও মেডিক্যাল টেকনিশিয়ান উভয় পদে ষষ্ঠ শ্রেণি থেকে এসএসসি পর্যন্ত গদ্য ও পদ্যের লেখক-কবির নাম, পরিচিতি, শব্দের অর্থ, বানান শুদ্ধিকরণ আয়ত্ত করতে হবে। এ ছাড়া ব্যাকরণের অংশে নবম ও দশম শ্রেণির পাঠ্য বই থেকে শব্দ, পদ, লিঙ্গ, উপসর্গ, কারক ও বিভক্তি , সমাস, সমার্থক শব্দ, বিপরীতার্থক শব্দ, এককথায় প্রকাশ, আয়ত্ত করতে পারলে বাংলায় ভালো করা যাবে।

♦ ইংরেজি : ইংরেজি বিষয়ে সাধারণত ব্যাকরণের ওপর ভালো দক্ষ হতে হবে। গ্রামারের অংশে Right Form of verb, Subject verb agreement, Tense, Article, Noun, Pronoun ,Verb, Adverb conditional, Degree, Voice, Conditional sentence, Narration, Transformation of sentence, Idioms & Phrases, Preposition ইত্যাদি ভালো করে পড়তে হবে। এ ছাড়া পরীক্ষা যদি লিখিত হয়, তাহলে প্যারাগ্রাফ, চিঠি, আবেদনপত্র আসতে পারে।

♦ গণিত : মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট ও মেডিক্যাল টেকনিশিয়ানদের ক্ষেত্রে পঞ্চম থেকে দশম শ্রেণির গণিত বই থেকে বাস্তব সংখ্যা, লসাগু-গসাগু, শতকরা, সরল, অনুপাত সমানুপাত, লাভ-ক্ষতি, ঐকিক নিয়ম, গড় অংশ ভালো করে আয়ত্ত করতে হবে। জ্যামিতি থেকে রেখা, কোণ, ত্রিভুজ, চতুর্ভুজ, বৃত্ত সম্পর্কে ধারণা রাখতে হবে।

♦ সাধারণ জ্ঞান : মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট ও মেডিক্যাল টেকনিশিয়ানদের পরীক্ষায় সাধারণ জ্ঞান অতি সহজ এবং কনফিউজ তৈরি করে এমন প্রশ্নই করা হবে। বাংলাদেশের সমসাময়িক বিষয়ের পাশাপাশি আন্তর্জাতিক বিষয়গুলো সম্পর্কে ভালো করে ধারণা থাকতে হবে।

♦ কম্পিউটার ও তথ্য-প্রযুক্তি : কম্পিউটার ডিভাইস—কি-বোর্ড, মাউস, ওসিআর, ইনপুট, আউটপুট ডিভাইস সম্পর্কে ধারণা থাকতে হবে। কম্পিউটারের প্রকারভেদ, কম্পিউটারের অঙ্গসংগঠন—সিপিইউ, হার্ডডিস্ক, এএলইউ সম্পর্কে সংক্ষিপ্ত ধারণা রাখতে হবে। ইন্টারনেটসহ দৈনন্দিন জীবনে কম্পিউটার ব্যবহার সম্পর্কে ধারণা থাকতে হবে।

বিষয়ভিত্তিক টেকনিক্যাল প্রশ্ন : মো. সেলিম মোল্লা জানান, মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট ও টেকনিশিয়ানদের ক্ষেত্রে বিষয়ভিত্তিক টেকনিক্যাল কিছু প্রশ্ন থাকবে। সেগুলো সাধারণত মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট ডিপ্লোমা লেভেলের পাঠ্য বই থেকেই করা হয়। এ ছাড়া টেকনিশিয়ানদের ক্ষেত্রে প্রতিটি আলাদা পদের জন্য বিষয়ভিত্তিক সাধারণ ধারণা থাকতে হবে। পরীক্ষা এমসিকিউ হোক কিংবা লিখিত, দুই পদ্ধতির জন্যই প্রস্তুতি নিতে হবে। যদি লিখিত পদ্ধতিতে হয়, তাহলে সংক্ষিপ্ত প্রশ্নের উত্তর লিখতে হতে পারে।


নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি পাওয়া যাবে এই লিংকে :

http://dghsc.teletalk.com.bd/doc/DGHSC.pdf