স্মার্ট নেতৃত্বের অপেক্ষায় আওয়ামী লীগ

0
84
স্মার্ট নেতৃত্বের অপেক্ষায় আওয়ামী লীগ

সারা দেশ থেকে কাউন্সিলর ডেলিগেট ঢাকায় আসতে শুরু করেছেন। সবার চোখ সাধারণ সম্পাদক, প্রেসিডিয়াম, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক, সম্পাদকীয় ও কেন্দ্রীয় সদস্য পদে। কার্যনির্বাহী কমিটির শেষ বৈঠক আজ

আর মাত্র এক দিন পর আওয়ামী লীগের ২২তম জাতীয় সম্মেলন। দেশবাসীর দৃষ্টি রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে। সকালে হবে সম্মেলনের উদ্বোধনী পর্ব। বিকালে ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনে বসবে দ্বিতীয় কাউন্সিল অধিবেশন। এতে আগামী তিন বছরের জন্য নতুন নেতৃত্ব নির্বাচন করা হবে। কোটি কোটি নেতা-কর্মীসহ দেশবাসীর প্রত্যাশা ২০৪১ সালের মধ্যে স্মার্ট বাংলাদেশ গড়তে হলে ‘স্মার্ট’ নেতৃত্ব বাছাই করতে হবে এবারের সম্মেলনে।

কেন্দ্র থেকে তৃণমূল নেতা-কর্মীর সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে যে কোনো চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করা, দেশব্যাপী পরিচিত, নেতা-কর্মীদের কাছে গ্রহণযোগ্য স্মার্ট নেতৃত্ব প্রয়োজন। যাদের দিকনির্দেশনায় সারা দেশে দলীয় নেতা-কর্মীরা ঐক্যবদ্ধ থেকে টানা চতুর্থ মেয়াদে দলকে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় আনতে পারবে।

জাতীয় সম্মেলনকে সামনে রেখে প্রস্তুতি এখন শেষ পর্যায়ে। সারা দেশ থেকে কাউন্সিলর ও ডেলিগেটসহ দলের হাজার হাজার নেতা-কর্মী ঢাকায় আসতে শুরু করেছেন। গতকাল থেকে কাউন্সিলর ও ডেলিগেট কার্ড বিতরণ শুরু করে দলটি। আগামীকাল পর্যন্ত তা অব্যাহত থাকবে। ২৪ ডিসেম্বর সকাল সাড়ে ১০টায় সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে প্রথম অধিবেশন শুরু হবে। এদিন সকাল সকালই সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে এসে উপস্থিত হবেন নেতা-কর্মীরা। দুপুরে খাবার ও নামাজের বিরতি হবে। তার পরেই ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনে বসবে দ্বিতীয় কাউন্সিল অধিবেশন। নির্বাচিত করা হবে নতুন নেতৃত্ব।

 

এ প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর কবির নানক বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুকন্যা ঘোষণা দিয়েছিলেন ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়বেন। তিনি গড়ে তুলেছেন। এখন প্রধানমন্ত্রী ঘোষণা করেছেন ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ে তুলবেন। আমাদের দলের জাতীয় সম্মেলনেও সে প্রত্যয় থাকছে। আর আওয়ামী লীগের সম্মেলন মানেই কিছু নতুনত্ব। ছাত্রলীগ-যুবলীগের সাবেক নেতাদের মধ্যে যারা রাজনীতিতে পরিপক্ব, ত্যাগী বিশ্বস্ত তারাও আওয়ামী লীগে সম্পৃক্ত হতে পারেন। আর নির্বাচন কমিশনের বাধ্যবাধকতা থাকায় নারী নেতৃত্বের কোটা পূরণের চেষ্টা তো থাকবেই।’

এদিকে আজ সন্ধ্যা ৬টায় গণভবনে বর্তমান কমিটির শেষ কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠক ডাকা হয়েছে। বৈঠক আজই শেষ করা হবে না, সভা মুলতবি করা হবে। ২৪ ডিসেম্বর সম্মেলনের উদ্বোধনের পর সভা আবার বসবে। দলীয় সভানেত্রীর উদ্বোধন ভাষণের মধ্য দিয়ে শেষ হবে কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠক। আজকের বৈঠকে সভায় অনুমোদনের জন্য উপস্থাপন করা হবে দলের গঠনতন্ত্র সংশোধনীর খসড়া। অবহিত করা হবে কাউন্সিলের আয়োজনের সার্বিক প্রস্তুতির সর্বশেষ অবস্থা। অনুমোদন দেওয়া হবে সাধারণ সম্পাদক ও কোষাধ্যক্ষের প্রতিবেদন। দলের বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদকরা নিজ নিজ দায়িত্বপ্রাপ্ত বিভাগের সাংগঠনিক রিপোর্ট সভায় তুলে ধরবেন। এবারের সম্মেলনের মূল প্রতিপাদ্য হচ্ছে ‘উন্নয়ন অভিযাত্রায় দেশরত্ন শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের উন্নত, সমৃদ্ধ ও স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয়ে।’ প্রতিবার দুই দিনে সম্মেলন হলেও এবার হতে যাচ্ছে একদিনে। এবারের জাতীয় সম্মেলনে সারা দেশ থেকে প্রায় ৭ হাজার কাউন্সিলর ও ৭ হাজার ডেলিগেট এবং লক্ষাধিক নেতা-কর্মী অংশ নেবেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, ২০২৪ সালের দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের বিষয়টি বিবেচনায় নিয়েই আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটি সাজানো হবে। যারা আগামী দিনে দেশি-বিদেশি সব ষড়যন্ত্র মোকাবিলা করে আওয়ামী লীগের দলীয় ঘোষণাপত্র ও নির্বাচনী ইশতেহার বাস্তবায়নে কাজ করবেন। পাশাপাশি দেশবাসীর কাছে সরকারের উন্নয়ন ও অর্জন তুলে ধরতেও কাজ করবেন নেতারা। সৎ-সাহসী, আদর্শবান ও পরীক্ষিত নেতা-কর্মীদের মধ্য থেকে নবীন-প্রবীণের সমন্বয়ে ডায়নামিক নেতৃত্ব পাবে আওয়ামী লীগ। দলের সভানেত্রী বঙ্গবন্ধুকন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা হবেন এটা নিশ্চিত। এ নিয়ে কারও সন্দেহ নেই। তবে দৃষ্টি আছে সাধারণ সম্পাদক, প্রেসিডিয়াম, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক, সম্পাদকীয় ও সদস্যদের দিকে। কারণ এই নেতৃত্বকে সামনে অনেক চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করতে হবে। দক্ষ, অভিজ্ঞ এবং জনপ্রিয়রাই এ পদে আসবেন এমনটা প্রত্যাশা সবার।

আওয়ামী লীগের অনেক নেতার বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে- জেলা, উপজেলা ও ইউনিয়ন পর্যায়ে সুসংগঠিত করার পরিবর্তে নানা কৌশলে অতীতে ভিন্ন মতাবলম্বীদের, আত্মীয়-স্বজনদের সংগঠনে ও স্থানীয় সরকার মনোনয়নে প্রাধান্য দিয়েছেন, কেউ কেউ বিদ্রোহী প্রার্থীকে মদদ দিয়েছেন। তৃণমূল নেতারা মনে করেন, বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার একক যোগ্যতায় দল ও সরকার পরিচালিত হচ্ছে। এসব নিয়ম-অনিয়মের সব তথ্যই তার কাছে আছে। তাঁকে আরও সফল করতে, আগামী নির্বাচনে ক্ষমতায় আনতে কেন্দ্রীয় কমিটিতে স্মার্ট নেতৃত্ব নিয়ে আসতে হবে। সাধারণ নেতা-কর্মীদের বিশ্বাস দলীয় সভানেত্রী সবকিছু বিবেচনায় নিয়ে দক্ষতাসম্পন্ন টিম সাজাবেন এবারের সম্মেলনে। দলের শতভাগ নেতা-কর্মী তাকিয়ে আছেন সে অপেক্ষায়। এ প্রসঙ্গে সিরাজগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা অ্যাডভোকেট কে এম হোসেন আলী হাসান বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা ২০৪১ সালের মধ্যে স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার অঙ্গীকার করেছেন। আমি মনে করি, সেই অঙ্গীকার বাস্তবায়নের জন্য তেমন স্মার্ট নেতৃত্বও প্রয়োজন।

জাতির পিতার হত্যার পর যারা জীবনবাজি রেখে সংগঠনকে আঁকড়ে ধরে আছেন সেই প্রবীণ এবং বিভিন্ন সময় ছাত্রলীগের নেতৃত্বে থাকা নবীনদের সমন্বয়ে একটি সুন্দর কমিটি উপহার দেবেন দলীয় সভানেত্রী।’ তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুকন্যা উপমহাদেশের সবচেয়ে দক্ষ ও অভিজ্ঞ রাজনীতিক। তিনি সিদ্ধান্ত নিতে কখনো ভুল করেন না। তাঁর সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত।’ জানতে চাইলে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম বলেন, আর এক বছর পর দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন। সে বিষয়টি মাথায় রেখেই এবারের সম্মেলন হচ্ছে। সারা দেশ থেকে আগত কাউন্সিলররা বঙ্গবন্ধুকন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে সভাপতি নির্বাচিত করবেন। এরপর নতুন নেতৃত্ব নির্বাচনের জন্য তাঁর ওপর দায়িত্ব অর্পণ করবেন।

কারণ শেখ হাসিনা আমাদের আলোর দিশারি। তিনিই আমাদের বাংলাদেশের জন্য নিরাপদ ঠিকানা। তাঁর হাতে নেতৃত্ব থাকলে আমরা সঠিক পথে আগাতে পারব, কোনো অশুভ শক্তি আমাদের ক্ষতি করতে পারবে না। এটা শুধু আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মী নয়, দেশের মানুষ দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করে। স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার জন্য বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার সঙ্গে সৎ-সাহসী, আদর্শবান দলের পক্ষে দাঁড়াতে পারে এরকম নবীন-প্রবীণের সমন্বয়ে আওয়ামী লীগের একটি শক্তিশালী নেতৃত্ব আসবে বলে মনে করি।