মালদ্বীপে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা উদ্বেগজনক হারে বৃদ্ধির পাচ্ছে

0
83

মালদ্বীপে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা উদ্বেগজনক হারে বৃদ্ধির পাচ্ছে ,গত এক সপ্তাহে ১৩ হাজার ৮৮০ জনেরও বেশি করোনায় আক্রান্ত হয়েছে বৃহত্তর রাজধানী (মালে) অঞ্চলে, অ্যাটল এবং রিসোর্ট গুলিতে আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে৷

গত সাত দিন সর্বোচ্চ আক্রান্তের সংখ্যা শুধুমাত্র রাজধানী মালেতে ৭ হাজার ৫২০ জন। রাজধানীতে আক্রান্তের হার ৩৬ শতাংশ ছাড়িয়ে গেছে। গত সাত দিনে অ্যাটলগুলিতে আক্রান্ত হয়েছে ৩ হাজার ৯৫১জন। পর্যটন কেন্দ্র রিসোর্টে গত সপ্তাহে ৫৬৮ জন। সাফারি এবং অন্যান্য থেকে অতিরিক্ত আক্রান্ত রেকর্ড করা হয়েছে।

গত এক সপ্তাহে পাঁচ জন করোনায় মৃত্য বরণ করেন। যার মধ্যে চার জন একদিনে মৃত্য বরণ করেছে,যা করোনা শুরুথেকে এই প্রথম একদিনে সর্বোচ্চ মৃত্যু । স্বাস্থ্য সুরক্ষা সংস্থা (এইচপিএ) বলেছে যে মালদ্বীপের পরিস্থিতি আরও খারাপ হবে বলে আশা করা হচ্ছে।

(এইচপিএ)তথ্য অনুসারে, বর্তমান উত্থান এখনও সর্বোচ্চ পর্যায়ে পৌঁছেনি-এই আক্রান্তের সংখ্যা প্রতিদিন ৪ হাজার থেকে ৬ হাজারের ও বেশী হতে পারে বলে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে এইচপি। দিনদিন মালদ্বীপের হাসপাতাল গুলোতে রোগী ভর্তির সংখ্যা বাড়ছে। তবে, এইচপিএ জানিয়েছেন যে,যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হলে আক্রান্ত কমে যেতে পারে।

এইচপিএ -এর বর্তমান পরিসংখ্যান দেখা যায়-যে এই সময়ে হাসপাতালে ৫২ জন রোগী ভর্তি রয়েছেন- রাজধানী মালে’র একটি হাসপাতালে ১৫ জন, হুলহুমালে’ মেডিকেল ফ্যাসিলিটিতে ৩৭ জন, এবং সাতজন আইসিইউতে ভর্তি তাদের মধ্যে চারজন ভেন্টিলেটর সাপোর্টে রয়েছেন। গত ২৪ ঘণ্টায় আইসিইউতে ভর্তি এক রোগী মারা গেছেন।

এইচপিএ বলেছে যে ৩ হাজার ৬৯৬ টি নমুনা বিদেশে পাঠানো হয়েছিল ভাইরাসের Omicron ভেরিয়েন্টের কিনা পরীক্ষা করার জন্য এবং ৭৪ টি নমুনা Omicron ভেরিয়েন্টের বলে নিশ্চিত করা হয়েছে।

নমুনাগুলি ১১ জানুয়ারি বিদেশে পাঠানো হয়েছিল, এবং পরীক্ষা করা ১০০টি নমুনার মধ্যে ৫০ টি ওমিক্রন ভেরিয়েন্টের ছিল। ফলাফলগুলি দেখায় যে নতুন রূপটি মালদ্বীপে দ্রুত ছড়িয়ে পড়ার সম্ভাবনা রয়েছে এবং এটি সংক্রমণের বর্তমান বৃদ্ধির কারণ বলে মনে করা হয়। তবে, এইচপিএ জানিয়েছে যে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হলে আক্রান্ত কমে যেতে পারে।