সিউলস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসে ই-পাসপোর্ট কার্যক্রমের শুভ উদ্বোধন

দক্ষিণ কোরিয়া প্রতিনিধি

0
152

বাংলাদেশের চতুর্থ মিশন হিসেবে বাংলাদেশ দূতাবাস, সিউল-এ ‘ই-পাসপোর্ট’ কার্যক্রমের উদ্বোধন করা হয়েছে। বুধবার (২০শে অক্টোবর) ই-পাসপোর্ট কার্যক্রমের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সেবা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব ড. তরুণ কান্তি শিকদার, দক্ষিণ কোরিয়ায় নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মো. দেলওয়ার হোসেন এবং ই-পাসপোর্ট ও স্বয়ংক্রিয় বর্ডার নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থাপনা প্রকল্পের অতিরিক্ত প্রকল্প পরিচালক কর্ণেল আনোয়ার সাদাত আবু মো. ফুয়াদসহ ই-পাসপোর্ট কার্যক্রমের সাথে সম্পৃক্ত ঢাকার ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা এবং দূতাবাসের কর্মকর্তারা।

ই-পাসপোর্ট কার্যক্রমের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, স্কাইথি কর্পোরেশন কোম্পানি লিমিটেডের চেয়ারম্যান ও দক্ষিণ কোরিয়া আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম হাসান, অনুষ্ঠানের সভাপতি ও ই-পাসপোর্ট ও স্বয়ংক্রিয় বর্ডার নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থাপনা প্রকল্পের অতিরিক্ত প্রকল্প পরিচালক কর্নেল আনোয়ার সাদাত আবু মো. ফুয়াদ তার বক্তব্যে ই-পাসপোর্ট কার্যক্রম ও প্রকল্প সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করেন।

বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মো. দেলোয়ার হোসেন তার বক্তব্যে এই দিনটিকে বাংলাদেশ দূতাবাস, সিউল-এর জন্য অত্যন্ত আনন্দ ও তাৎপর্যপূর্ণ দিন হিসেবে উল্লেখ করেন। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’ রূপরেখার আলোকে বাংলাদেশ ও বিদেশস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসসমূহে ই-পাসপোর্ট কার্যক্রম চালু করার উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। বাংলাদেশ দূতাবাস, সিউল-এ ই-পাসপোর্ট চালু হওয়ার ফলে দক্ষিণ কোরিয়ায় বসবাসরত প্রবাসী বাংলাদেশীদের জন্য ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট সংক্রান্ত প্রক্রিয়াসমূহ সহজতর ও নিরাপদ হবে।

তিনি আরও বলেন, ই-পাসপোর্ট প্রক্রিয়ায় সর্বাধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহৃত হওয়ায় এর বিশ্বাসযোগ্যতা ও গ্রহণযোগ্যতা বহুগুণ বৃদ্ধি পাবে এবং বিশ্বের অনেক দেশ বাংলাদেশের সাথে ভিসা অব্যাহতি চুক্তি স্বাক্ষরে আগ্রহী হবে যা বহির্বিশ্বে বাংলাদেশের পাসপোর্টের মান ও মর্যাদা বৃদ্ধি করবে। তিনি বাংলাদেশ দূতাবাস, সিউল-এ ই-পাসপোর্ট কার্যক্রম বাস্তবায়নে সংশ্লিষ্ট সকল মন্ত্রণালয়/দপ্তরের আন্তরিক সহযোগিতার জন্য ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন।

অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব ড. তরুণ কান্তি শিকদার তার বক্তব্যে বাংলাদেশ ও বিদেশস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসসমূহে ই-পাসপোর্ট কার্যক্রমের অগ্রগতি সম্পর্কে আলোচনা করেন। বর্তমান সরকারের উন্নয়ন কার্যক্রমসমূহ তুলে ধরে তিনি বলেন, বর্তমান সরকারের উন্নয়ন রূপরেখা বাস্তবায়নের একটি অন্যতম মাইলফলক হলো ডিজিটাল ইলেকট্রনিক পাসপোর্ট সেবা কার্যক্রম।

তিনি জানান, এ লক্ষ্যে সরকার অচিরেই বিদেশস্থ সকল মিশন সমূহে ই-পাসপোর্ট কার্যক্রম চালুকরণে ও বাংলাদেশী জনগণকে পাসপোর্ট সংক্রান্ত সেবা প্রদানে প্রতিশ্র“তিবদ্ধ। বক্তব্য শেষে প্রধান অতিথি কয়েকজন আবেদনকারীকে ই-পাসপোর্টের এনরোলমেন্ট স্লিপ হস্তান্তর করেন।

পরে অতিথিরা ফিতা কেটে বাংলাদেশ দূতাবাস, সিউল-এ ই-পাসপোর্ট কার্যক্রমের উদ্বোধন ঘোষণা করেন।