মালদ্বীপে আক্রান্ত ৯৬৮ জনের মধ্যেই বাংলাদেশি ৫১৪

এএনবি ডেস্ক রিপোর্ট ,www.anb24.com

মালদ্বীপে খুব দ্রুত গতিতে করোনা ভাইরাস আক্রান্ত রোগী বৃদ্ধি পাচ্ছে। মালদ্বীপে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগী ৯৬৮ জন যার মধ্যে ৫১৪ জনই বাংলাদেশী প্রবাসী
আজ ১৪ মে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত ৫ জন বাংলাদেশী প্রবাসীকে সনাক্ত করা হয়। মালদ্বীপের রাজধানী মালে শহরে এ পর্যন্ত বাংলাদেশী প্রবাসী করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগী সনাক্ত করা হয় ৫১৪ জন।

মালদ্বীপ স্বাস্থ্য সংস্থা-হেলথ প্রটেকশন এজেন্সি (এইচপিএ) ও স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়- এর সবশেষে আপডেট অনুযায়ী এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত
সব মোট ৯৬৮ জন। এরমধ্যে ৫১৪ জন প্রবাসী বাংলাদেশি

এই পর্যন্ত মারা গেছে ৪ জন এই ৪ জনের মধ্যে বাংলাদেশী ১ জন, সুস্থ হয়েছে ৪০ জন,

মালদ্বীপে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে সংক্রমণ বাড়ছে দিন দিন। এমতাবস্থায় তৃতীয় দফায় লকডাউনে গেছে মালদ্বীপন সরকার আজ বৃহস্পতিবার রাত ১২ টার পর থেকে শুরু হয়েছে এই লকডাউন চলবে ২৮শে মে পর্যন্ত,

এদিকে বেশিরভাগ বাংলাদেশিই একসঙ্গে একই আবাসিক ভবনে থাকতে হয় । মালদ্বীপে অভিবাসী বাংলাদেশের শ্রমিকের সংখ্যা প্রায় ৮০ হাজারের ও বেশি। এদের বেশিরভাগই অবৈধ এবং কাজ করছেন মূলত নির্মাণ শিল্পে।খুবই কষ্টকর পরিবেশে দিন যাপন করেন তারা। গাদাগাদি করে ছোট ঘরে থাকেন, একই টয়লেট ব্যবহার করেন অনেকে। কোন কোন আবাসিক ভবনে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে একটা রুমে গাদগাদি করে ঘুমান ১০থেকে ১২ জন করে শ্রমিক।

মালদ্বীপে এত বেশি প্রবাসী বাংলাদশীদের আক্রান্তের কারন হিসেবে অনেক প্রবাসীরা মনে করেন এই লকডাউনের সময়ও বাংলাদেশীদের দিয়ে ডেলিভারি করানো।

মালিক পক্ষ বেতন, রুম ভাড়া দিবেনা বলে ডেলিভারিতে পাঠাচ্ছেন বাংলাদেশিদের। আর একজন শ্রমিকের জন্য রুমের অন্য বাংলাদেশীরাও সবাই ভয়ে ও আতংকে থাকে, কারন যিনি ডেলিভারিতে যাচ্ছেন সে যদি আক্রান্ত হয় রুমের বাকিরা ও হতে পারে। এই বিষয়ে বালাদেশ সরকারে দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে অনেক প্রবাসীরা, তারা বলেন সরকার চাইলে এই ডেলিভারিতে আমাদের দেশের প্রবাসীদের এভাবে ব্যবহার করতে পারবে না।