বৈশাখ-জ্যৈষ্ঠ গেল, পৌষ-মাঘও গেল, পেঁয়াজের দাম কমল কই?

✍ ডেস্ক রিপোর্ট
পেঁয়াজের দাম নিয়ন্ত্রণ করতে না পারায় বাণিজ্যমন্ত্রীর কড়া সমালোচনা করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

তিনি বলেছেন, বানিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেছেন, পেঁয়াজের দাম স্থিতিশীল হতে আরও কিছুটা সময় লাগবে। বাণিজ্যমন্ত্রীকে বলতে চাই– বৈশাখ গেল, জৈষ্ঠ্য গেল, দেখতে দেখতে পৌষ-মাঘ সবই গেল, কিন্তু পেঁয়াজের দাম কমল কই?

শুক্রবার রাজধানীর নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে রিজভী এসব কথা বলেন।

নিত্যপণ্যের দাম বাড়ায় সরকারের ব্যর্থতা তুলে ধরে বিএনপির অন্যতম এই শীর্ষ নেতা বলেন, এখন শীতকাল, পেঁয়াজসহ শাকসবজির সময়; অথচ শুধু পেঁয়াজই নয়, সব শাকসবজির দামই লাগামহীন ঘোড়ার মতো মানুষের নাগাল থেকে ছুটে চলছে। শাকসবজি ছাড়াও নিত্যপ্রয়োজনীয় সব পণ্যের মূল্য জনগণের ক্রয়ক্ষমতার নাগালের বাইরে। অথচ মধ্যরাতের সরকারের বাণিজ্যমন্ত্রী নিঃসঙ্কোচে বললেন, পেঁয়াজের দাম স্থিতিশীল হতে আরও কিছুটা সময় লাগবে। গবুচন্দ্র মন্ত্রীদের বক্তব্য-বিবৃতিতে মানুষ এখন অতিষ্ঠ।

রিজভী বলেন, নব্য বাকশালী নিশিরাতের সরকার আছে বলেই গত একদশকে নয় লক্ষ কোটি টাকা দেশ থেকে পাচার হয়েছে এবং বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে আটশ দশ কোটি টাকা লোপাট হয়েছে, দেশের রাষ্ট্রায়াত্ত ব্যাংকগুলো হয়ে পড়েছে দেউলিয়া। এসব প্রকাশ্য ডাকাতিতে নিশিরাতের সরকারের নীরবতাই প্রমাণ করে ডাকাতির সঙ্গে তারা জড়িত।

দেশের উন্নয়নে সরকার ও মন্ত্রীদের দেয়া বক্তব্যের সমালোচনা করে রিজভী বলেন, তাহলে কি কথাই এই সরকারের উন্নয়ন? কাদের উন্নয়ন কিংবা কাদের জন্য উন্নয়ন? আসলে পর্বত-প্রমাণ দুর্নীতিই এদের উন্নয়ন।

‘বাস্তবতা হলো– এই স্বাধীন দেশে এখন জনগণ পরাধীন। তাই জনগণের স্বাধীনতার জন্য আজ আমাদের স্লোগান ‘টেক ব্যাক বাংলাদেশ’-যোগ করেন রিজভী।

সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান এ জেড এম জাহিদ হোসেন, নিতাই রায় চৌধুরী, কেন্দ্রীয় নেতা মীর সরাফত আলী সপু, অ্যাডভোকেট আবেদ রেজা প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।