রেমিট্যান্সে ইতিহাসের সবচেয়ে বড় রেকর্ড

নতুন বছরের প্রথম মাস জানুয়ারির প্রথম ১৫ দিনে রেমিট্যান্স প্রবৃদ্ধিতে নতুন রেকর্ড সৃষ্টি হয়েছে। এই সময়ে রেকর্ড পরিমাণ ৯৫৭ মিলিয়ন ডলার রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা। ২ শতাংশ হারে নগদ প্রণোদনা কার্যকরের পর প্রবাসীরা বৈধ পথে রেমিট্যান্স পাঠাতে বেশি আগ্রহী হওয়ায় এতে নতুন রেকর্ড সৃষ্টি হয়েছে বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল।

এর আগে চলতি ২০১৯-২০২০ অর্থবছরের প্রথম চার মাসে প্রবাসীরা ৬ হাজার ১৫৬ মিলিয়ন ডলার রেমিট্যান্স পাঠিয়েছিলেন; যা গত অর্থবছরের একই সময়ে ছিল ৫ হাজার ১০৮ মিলিয়ন ডলার।

সূত্র জানান, গত অক্টোবরে ১ হাজার ৬৪২ মিলিয়ন ডলার রেমিট্যান্স এসেছে। বাংলাদেশি মুদ্রায় যা ১৩ হাজার ৬২৭ কোটি টাকা। গত বছরের অক্টোবরে যা ছিল ১ হাজার ২৩৯ মিলিয়ন ডলার। স্থানীয় মুদ্রায় যা ছিল ১০ হাজার ২২০ কোটি টাকা। এতে এ বছরের অক্টোবরে রেমিট্যান্স বেশি এসেছে ৪০০ মিলিয়ন ডলার। এর ফলে বাংলাদেশ ব্যাংকের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ আবারও ৩২ বিলিয়ন ডলার অতিক্রম করেছে। প্রবাসীরা যাতে বৈধ পথে অর্থ পাঠিয়ে রেমিট্যান্স প্রবৃদ্ধিতে ভূমিকা রাখতে পারেন এজন্য সরকার এ খাতে ২ শতাংশ হারে নগদ সহায়তা ঘোষণা করেছে; যা গত ১ জুলাই থেকে কার্যকর রয়েছে। এ ছাড়া প্রতিদিন একজন প্রবাসী যতবার ইচ্ছা ১ হাজার ৫০০ মার্কিন ডলার পর্যন্ত পাঠাতে পারছেন। এতে কোনো প্রশ্ন করা হবে না। বরং অবৈধ পথে রেমিট্যান্স পাঠালে যে কোনো সময় যে কেউ বিপদের সম্মুখীন হতে পারেন বলে বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে প্রতিনিয়ত প্রচার চালানো হচ্ছে। এর ফলে এ বছর রেমিট্যান্সে অনন্য রেকর্ড তৈরি হয়েছে বলে মনে করে সরকার। সরকারের এমন নানামুখী ইতিবাচক প্রচারের কারণে নতুন বছরের প্রথম মাসের ১৫ দিনে নতুন এ রেকর্ড সৃষ্টি হয়েছে। অর্থমন্ত্রী আরও বলেন, প্রণোদনা দেওয়ায় হুন্ডি কমেছে। প্রবাসীরা বৈধ পথে রেমিট্যান্স পাঠাচ্ছেন। ফলে রেমিট্যান্সে নতুন রেকর্ড তৈরি হচ্ছে।