হেল্পলাইনে সমস্যার তাৎক্ষণিক সমাধান দেব: তাপস

ফাইল ছবি

✍ডেস্ক রিপাের্ট

ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র হিসেবে দায়িত্ব পেলে নগরবাসীর জন্য ২৪ ঘণ্টার হেল্পলাইন খুলে সমস্যার তাৎক্ষণিক সমাধান দেবেন বলে প্রতিশ্রতি দিয়েছেন আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস।

তিনি বলেছেন, হেল্প লাইনে সমাধান না হলে সরাসরি অভিযোগ জানানোর সুযোগও থাকবে।

বৃহস্পতিবার রাজধানীর আজিমপুর-নিউমার্কেট এলাকার বিজিবি ৩ নম্বর গেটের সামনে থেকে নির্বাচনী প্রচারণা শুরুর করার আগে সাংবাদিকদের এ প্রতিশ্রুতির কথা জানান তিনি।

শেখ ফজলে নূর তাপস বলেন, আমি নির্বাচিত হলে মেয়র হিসেবে নয় একজন সেবক হিসেবে ঢাকাবাসীর জন্য কাজ করে যাব। সেখানে একজন সেবক হিসেবে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন ২৪ ঘণ্টা ঢাকাবাসীর সেবা করবে। ঢাকাবাসী আমাকে তাদের কাছে ২৪ ঘণ্টাই পাবে।

তিনি বলেন, আমাদের হেল্পলাইন আমরা চালু করবো। যাতে ঢাকাবাসী যে কোনো সমস্যা, যে কোনো অভিযোগ দিতে পারবে। হেল্পলাইনের মাধ্যমে সমস্যা সমাধান না হলে হেল্পলাইন থেকে তারা সরাসরি মেয়রকে ফোন করতে পারবে। মেয়র সেই বিষয়ে সাথে সাথে সমাধান দেবে। এভাবে আমাদের সেবাকে সার্বক্ষণিক ঢাকাবাসীর দোরগোড়ায় আমরা পৌঁছাবো।

তাপস বলেন, ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন একটি সেবা প্রদানকারী সংস্থা। সুতরাং সেই সেবা প্রদানকারী সংস্থাকে ঢাকাবাসীর জন্য ২৪ ঘণ্টাই আমরা নিয়োজিত রাখবো।

এ সময় ঐতিহ্যের ঢাকা, সুন্দর ঢাকা, সচল ঢাকা, সুশাসিত ঢাকা এবং উন্নত ঢাকা-এই পাঁচ লক্ষ্যের কথা পুনর্ব্যক্ত করে আওয়ামী লীগের এই মেয়র প্রার্থী বলেন, ঢাকা নগরীকে আমরা পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন থেকে শুরু করে বাসযোগ্য সুন্দর নগরী হিসেবে গড়ে তুলবো। রাস্তায় আবর্জনা থাকবে না। মশক নিধন, সবুজায়ন এসব আমরা দৈনন্দিন ভিত্তিতে করবো। ২৪ ঘণ্টা সিটি কর্পোরেশন এই কাজে নিয়োজিত থাকবে। আমাদের প্রাণের ঐতিহ্যের ঢাকা থাকবে একটি গর্বের জায়গায়।

পুরাতন ঢাকার সমস্যা নিয়ে আগে কেউ কোনো পরিকল্পনা নেয়নি উল্লেখ করে এই বিষয়ে বিস্তর পরিকল্পনা আছে জানিয়ে তিনি বলেন, আমাদের প্রথম পরিকল্পনাই হয়েছে ঐতিহ্যবাহী ঢাকাকে নিয়ে। এখানে জলাবদ্ধতা নিরসন থেকে শুরু করে ব্যাপক কার্যক্রম আমরা হাতে নেব। আমাদের যে মহাপরিকল্পনা সেই পরিকল্পনার আওতায় ঐতিহ্যবাহী ঢাকাকে সচল করে তুলবো। নগরবাসী বাসযোগ্য সুন্দর নগরী পাবে।

দায়িত্ব পেলে প্রথম ৯০ দিনে অগ্রাধিকার দিয়ে সমন্বিত কার্যক্রমের মাধ্যমে ক্রাশ প্রোগ্রামের আওতায় ব্যাপকভাবে কাজ শুরু করে মৌলিক নাগরিক সুবিধাগুলো নগরবাসীর দোরগোড়ায় পৌঁছে দেওয়ার কথা জানান শেখ তাপস।

নৌকা মার্কার উন্নয়নের রূপরেখা ঢাকাবাসী সাদরে গ্রহণ করেছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, এর আগে কখনও ঐতিহ্যবাহী ঢাকাকে নিয়ে কোনো পরিকল্পনা করা হয়নি। আমরাই প্রথম এটা করেছি। আমাদের পরিকল্পনার প্রথমেই রয়েছে ঐতিহ্যকে সংরক্ষণ করা এবং ঐতিহ্যের যে স্বকীয়তা অপরূপ রয়েছে, সেটাকে প্রস্ফূটিত করা। আমরা যে মহাপরিকল্পনা নেব সেখানে ঐতিহ্যবাহী ঢাকাকে নিয়ে অনেক পরিকল্পনা রয়েছে। আমরা সেভাবে কাজ করতে চাই। যে ঐতিহ্য হারিয়ে গেছে তা কিভাবে পুনরুদ্ধার, পুরজ্জীবিত করতে পারি এবং বিশ্ববাসীর কাছে তুলে ধরতে পারি সেটাই মূল লক্ষ্য থাকবে।

আচরণবিধি মেনে সুশৃঙ্খলভাবে প্রচারণা চালাতে উপস্থিত নেতাকর্মীদের প্রতি আহ্বান জানান ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের আওয়ামী লীগ মনোনীত এই মেয়র প্রার্থী।

গণসংযোগে তাপসের সঙ্গে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনিবাহী সদস্য ডা. মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন, আনোয়ার হোসেন, সাহাবুদ্দিন ফরাজি, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুনসহ দল ও সহযোগী সংগঠনের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।