স্মার্টকার্ডই দেবে পাসপোর্টের সুবিধা

এক বছরের মধ্যে স্মার্টকার্ডই দেবে পাসপোর্টের সুবিধা। পাসপোর্ট ছাড়া শুধু স্মার্টকার্ড দিয়ে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে যেতে পারবেন বাংলাদেশের নাগরিকরা। এ বছরই এ  প্রক্রিয়া শুরু করার পরিকল্পনা রয়েছে নির্বাচন কমিশনের (ইসি)। জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন অনুবিভাগের (এনআইডি উইং) মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোহাম্মদ সাইদুল ইসলাম পিবিএ’কে এ তথ্য জানিয়েছেন।

 

জানা গেছে, শুরুতেই ফোরাম অব দি ইলেকশন ম্যানেজমেন্ট বডিজ অব সাউথ এশিয়ার (ফেমবোসা) সাত দেশে পরীক্ষামূলকভাবে এটি চালু করা হবে। পরবর্তীতে ধাপে ধাপে বাকি দেশগুলোতে ভ্রমণের ক্ষেত্রে এ সুবিধা পাবেন নাগরিকরা। বাংলাদেশ ছাড়া ফেমবোসাভুক্ত বাকি দেশগুলো হলো- ভারত, পাকিস্তান, শ্রীলংকা, আফগানিস্তান, নেপাল, ভুটান ও মালদ্বীপ।

ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোহাম্মদ সাইদুল ইসলাম পিবিএ’কে বলেন, ‘স্মার্টকার্ড দিয়ে অন্য দেশে ভ্রমণের সুবিধাটি আমরা অবশ্যই বাস্তবায়ন করব। শুরুতে শুধু দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোতে চালু করার বিষয়টি পরিকল্পনায় রেখেছিলাম। কিন্তু এখন আমাদের সিদ্ধান্ত হচ্ছে দক্ষিণ এশিয়ার বাইরেও সারা বিশ্বের অন্যান্য দেশেগুলোতে এ সুবিধা চালু করার।’

‘আমরা দেখছি বিশ্বের বিভিন্ন দেশে কিভাবে স্মার্ট কার্ডের মধ্যে সংরক্ষিত সার্ভারের তথ্য ব্যবহার করে মানুষকে চিহ্নিত করা যায়, সেই চেষ্টা অব্যাহত আছে। আমরা কাজ শুরু করেছি। পূর্ণ গতিতে এগিয়ে যাচ্ছি।’

তিনি বলেন, ‘যেহেতু বিভিন্ন দেশের সাথে লিংক করার বিষয় রয়েছে, সেই বিষয়টি নিয়ে তাদের সঙ্গে আলোচনা চলছে, তারা কিভাবে এটি ব্যবহার করবে। একটি নতুন বিষয় শুরু করতে অনেক চ্যালেঞ্জ আসে। আমরা খুব দ্রুত এটি শুরু করব। প্রবাসীদের ভোটার নিবন্ধনের কাজ শুরু হওয়ার পর এই বিষয়টি নিয়ে কাজ শুরু করব।’

জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন অনুবিভাগের মহাপরিচালক বলেন, ‘এক বছরের মধ্যেই এই সুবিধাটি চালু করব। শুরুতে পরীক্ষামূলকভাবে কয়েকটি দেশে শুরু করব। প্রথামিকভাবে আমরা ফেমবোসাভুক্ত দেশগুলোতে কাজ শুরু করব। এনআইডি উইং থেকে এটি পরিকল্পনা করছি। এক বছরের মধ্যেই এটি শুরু করা সম্ভব।’

এনআইডি উইং সূত্রে জানা গেছে, এই সুবিধা চালু হলে স্মার্টকার্ড দিয়ে পাসপোর্টের কাজও করা যাবে। এতে করে পাসপোর্টের ঝামেলা কমে যাবে। স্মার্টকার্ডের মধ্য পাঁচটি স্তরে ২৫টি সিকিউরিটি ফিচার আছে। কার্ডে পাঁচটি লেয়ারে সিকিউরিটি ফিচার দেওয়া আছে। এছাড়াও নাগরিকের সম্পূর্ণ বায়োডাটা এর মধ্যে সংরক্ষিত আছে।

কার্ডের ভেতরে একটি পাতা আছে, যেখানে বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ, জাতীয় সংগীত, বাংলাদেশের মানচিত্র, শাপলা ফুল, আলট্রাভায়োলেট রে, চোখের আইরিশ, বায়োমেট্রিক, ফিঙ্গার প্রিন্টসহ আরও কয়েকটি ফিচার আছে। এ ছাড়া একজন মানুষের ৩১টি ডাটা আছে। এই ডাটাগুলো তার কি না আইডি পাঞ্চ করলেই সব দেখা যাবে।

আরও জানা গেছে, দীর্ঘমেয়াদি টেকসই কার্যক্রম ও রাষ্ট্রের নিরাপত্তা ও সম্মান বিবেচনায় বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন গত বছরের ২৭ আগস্ট থেকে দেশিয় প্রযুক্তি, নিজস্ব জনবলের মাধ্যমে স্মার্ট জাতীয় পরিচয়পত্র উৎপাদন করছে। নিজস্ব ব্যবস্থাপনা ও জনবল ব্যবহারের কারণে অর্থ সাশ্রয়ের পাশাপাশি টেকসই সাপ্লাই চেইন ম্যানেজমেন্ট ও নিজস্ব সক্ষমতাও অর্জিত হয়েছে বলে দাবি এনআইডি উইংয়ের।