বুড়িচং কলাগাছের শহীদ মিনারে শ্রদ্ধা জানালেন মাদ্রাসার অধ্যক্ষ

কুমিল্লা (বুড়িচং) প্রতিনিধি:  মাদ্রাসার অধ্যক্ষ ও অন্যান্য শিক্ষক বৃন্দ আন্দোলনের ৬৭ বছরেও কুমিল্লা জেলা বুড়িচং উপজেলায় বেশির ভাগ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে গড়ে উঠেনি শহীদ মিনার। উপজেলার প্রাথমিক, মাধ্যমিক, কলেজ-মাদ্রাসা কিন্ডারগার্টেন মিলে অনেক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের মধ্যে অল্প কয়েক প্রতিষ্ঠানে শহীদ মিনার রয়েছে। তার পরেও তারা পিছিয়ে নেই,শহীদের শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করা থেকে, কলাগাছ দিয়ে তৈরি করেছে অস্থায়ী শহীদ মিনার। আর সেই শহীদ মিনারে ২১ ফেব্রয়ারি সকালে ফুল দিয়ে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়েছেন, মাদ্রাসার অধ্যক্ষ ও প্রতিষ্ঠাতা আলহাজ্ব মাওলানা মুফতী কাজী আবুল বাশার, এই সময় আরোও উপস্থিত ছিলেন মাদ্রাসার সহকারী অধ্যক্ষ মাওলানা ফারুক আহমেদ, আরবি প্রভাষক, মাওলানা মাহফুজুর রহমান,আরবি প্রভাষক, মাওলানা রহিম, বাংলা প্রভাষক সাইফুল ইসলাম, সহ আরোও অনেকেই, তারপরে মাদ্রাসার হল রুমে এক মিলাদ মাহফিল দোয়া ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়,আলোচনায় মাদ্রাসার অধ্যক্ষ আলহাজ্ব মাওলানা মুফতী কাজী আবুল বাশার, বলেন গ্রামাঞ্চলের যে সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শহীদ মিনার রয়েছে সেগুলোও অযত্ন আর অবহেলায় পড়ে রয়েছে। ২১ ফেব্রুয়ারি প্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধ থাকার কারণে এবং প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে যথাযথভাবে দিবসটি পালন না করায় অধিকাংশ শহীদ মিনারে ২১ ফেব্রুয়ারি ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানানো হয় না। কোনো কোনো শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শহীদ মিনারে স্থানীয় রাজনৈতিক দল ও সামাজিক সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠান মাঝে মধ্যে ফুল দিয়ে থাকে। তবে ভাষা আন্দোলন বা আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে কোনো আয়োজন হয় না। ফলে শিক্ষার্থীরা আন্তর্জাতিক মার্তৃভাষা সম্পর্কে কিছু শিখতে বা জানতে পারছে না। তিনি আরোও বলেন, আমাদের মাদ্রাসায় কোন শহীদ মিনার না থাকায় আমি নিজে উদ্যোগ নিয়ে মাদ্রাসার ছাত্রদের দিয়ে প্রতি বছর কলা গাছ দিয়ে শহীদ মিনার বানিয়ে সেই মিনারে ছাত্র-ছাত্রীদের নিয়ে আমি জাতীয় দিবস গুলো পালন করতে শুরু করি। এখনো এ মাদ্রাসায় শহীদ মিনার সরকারি ভাবে করা হয়নি।